মঙ্গলবার ১৬ আগস্ট ২০২২ ১ ভাদ্র ১৪২৯

অতিথি পাখি আসে যায়, কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায়
ইবি প্রতিনিধি:
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২১, ১:৪৯ পিএম আপডেট: ০২.১২.২০২১ ১:৫৩ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

এই হয়তো শুনতে পাবেন পাখির কলতান, কয়েক ঘন্টায় তা শুনশান। হয়তো বন্ধুর  মুখে শুনা যায় অতিথি পাখির আগমন। আগমন হলেও যত্নের অভাবে তা আবার মুখ ফুরিয়ে চলে যায়। এমনটিই ঘটে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে আসা পরিযায়ী পাখিদের সাথে। প্রতি বছরই শীত শুরু বা শেষ দিকে বিশ্ববিদ্যালয় লেক সংলগ্ন এলাকায় অতিথি পাখির আগমন ঘটে। শিক্ষার্থীরা বলছেন, ‘ এসব বিষয়ে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কোন ভাবনা নেই। হাজার হাজার মাইল পাড়ি দিয়ে আসা পরিযায়ী পাখিদের রাখতে আমরা ব্যর্থ। অতিথিদের অতিথি হিসেবে মূল্যায়ন না করার তারা আবার ফিরে যায়। এভাবেই অতিথি পাখি প্রতি বছর আসে যায় এসব অতিথি পাখি। কর্র্তৃপক্ষের অবহেলায় তারা আবার চলে যায়।’

জানা যায়, শীতকালের এই সময়ে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে পাখিরা বাংলাদেশে আসে। তারই ধারাবাহিকতায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়েও অতিথি পাখির দেখা মিলে। অতিথি পাখির আগমন হলেও বিষয়টি নিয়ে বরাবরই উদাসীন কর্তৃপক্ষ। ফলে পাখিরা যেভাবে আসে দু’একদিনের মধ্যে আবার উড়ে যায়। এর জন্য শিক্ষার্থী ও পর্যটকরা দায়ী । পাখিদের  ছবি তুলতে গিয়ে কেউ ঢিল মেরে ছবি উঠায়। ফলে পাখিরা উড়ে যায়। ক্যাম্পাসের মফিজ লেক সংলগ্ন এলাকায় এ সময়টিতে বুনো শালিকের দল, টিয়ে, ময়না, ফিঙে, মাছরাঙা, সরালি, ল্যাঞ্জা হাঁস, খুঁনতে হাঁস, বালি হাঁস, মানিকজোঁড়, বালিহাঁস, চখাচখি, রাজহাঁস সহ বিভিন্ন ধরনের অতিথি পাখি দেখা মিলে। কর্তৃপক্ষ উদ্যেগ না নিলেও শিক্ষার্থীদের একটি সংগঠন পাখিদের নিরাপদ পরিবেশ সৃষ্টিতে কাজ করছে। প্রথম বর্ষের কয়েকজন শিক্ষার্থী মিলে "অভয়ারণ্যে" নামে একটি সংগঠনের সৃষ্টি করেছে। তারা ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে পাখির বাসস্থান তৈরীতে  গাছে গাছে  মাটির হাড়ি স্থাপন ঝুঁলিয়েছেন।

এ বিষয়ে সিবগাতুল্লাহ নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘ঝাঁকে ঝাঁকে পাখিরা যখন উড়ে বেড়ায় সে সময় দলবন্ধ পাখিদের কলতাম আমাদেরকে বিমোহিত করে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের উচির পাখিদের বাসস্থান সুনিশ্চিত করা। যাতে অতিথি পাখিদের কেউ ছবি তোলার নামে অত্যাচার করতে না পারে। একইসাথে আমাদেরও সচেতন হওয়া জরুরি।
 
বিশ্ববিদ্যালয়ের এস্টেট অফিসের কর্মকর্তা টিপু সুলতান বলেন, ‘অতিথি পাখিদের বাসস্থান ও সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টিতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। ’




ডেল্টা টাইমস্/আর এম রিফাত/সিআর/আরকে


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
  এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ  
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো. জাহাঙ্গীর আলম, নির্বাহী সম্পাদক: মো. আমিনুর রহমান
প্রকাশক কর্তৃক ৩৭/২ জামান টাওয়ার (লেভেল ১৪), পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত
এবং বিসমিল্লাহ প্রিন্টিং প্রেস ২১৯ ফকিরাপুল, মতিঝিল থেকে মুদ্রিত।

ফোন: ০২-৪৭১২০৮৬১, ০২-৪৭১২০৮৬২, ই-মেইল : [email protected], [email protected]
সম্পাদক ও প্রকাশক: মো. জাহাঙ্গীর আলম, নির্বাহী সম্পাদক: মো. আমিনুর রহমান
প্রকাশক কর্তৃক ৩৭/২ জামান টাওয়ার (লেভেল ১৪), পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত
এবং বিসমিল্লাহ প্রিন্টিং প্রেস ২১৯ ফকিরাপুল, মতিঝিল থেকে মুদ্রিত।
ফোন: ০২-৪৭১২০৮৬১, ০২-৪৭১২০৮৬২, ই-মেইল : [email protected], [email protected]