বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

৯ ডিসেম্বর সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছুটি থাকবে

নিজস্ব প্রতিবেদক, ডেল্টাটাইমস্, আপডেট : ১ ডিসেম্বর ২০১৯

/ শিক্ষা

বড়পীর আব্দুল ক্বাদির জিলানীর (রহ.) ওফাত দিবস ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম পালিত হবে ৯ ডিসেম্বর।  গত বুধবার সন্ধ্যায় বায়তুল মোকাররমের ইসলামিক ফাউন্ডেশন সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। উল্লেখ্য ওই দিন সারাদেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো বন্ধ থাকবে।  ২০১৯ সালের ছুটি তালিকা থেকে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

সভায় জানানো হয়, বুধবার সন্ধ্যায় দেশের কোথাও ১৪৪১ হিজরি সনের রবিউস সানি মাসের চাঁদ দেখা যায়নি।  ফলে বৃহস্পতিবার রবিউল আউয়াল মাস ৩০ দিন পূর্ণ হবে এবং আগামী ২৯ নভেম্বর শুক্রবার থেকে রবিউস সানি মাস গণনা করা হবে।  এতে সভাপতিত্ব করেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব কাজী হাসান আহমেদ।

আব্দুল কাদের জিলানী হলেন ইসলাম ধর্মে অন্যতম প্রধান আধ্যাত্মিক ব্যক্তিত্ত্ব। তিনি ইসলামের অন্যতম প্রচারক হিসাবে আব্দুল কাদের হিজরি ৪৭১ সনের রমজান মাসের ১ তারিখে বাগদাদ নগরের জিলান শহরে জন্ম গ্রহণ করেন।  তার পিতার নাম আবু সালেহ মুছা জঙ্গী এবং মাতার নাম সাইয়েদা উম্মুল খায়ের ফাতেমা।  তার মাতা ছিলেন হাসান ইবনে আলীর বংশধর।  

শিক্ষা-দীক্ষায় পূর্ণতা অর্জনের পর তিনি নিজেকে পবিত্র ইসলাম ধর্ম প্রচারের কাজে নিয়োজিত করেন।  বিভিন্ন মাহফিলে তিনি ইসলামের সুমহান আদর্শ যুক্তিপূর্ণ ভাষায় বর্ণনা করতেন।  তার মাহফিলে শুধু মুসলমান নয়, অনেক অমুসলিমও অংশগ্রহণ করতো। তার বক্তব্য শুনে অনেক অমুসলিম ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন।

সুবিদিত।  সূফীরা তাকে ‘বড়পীর হযরত আব্দুল কাদের জিলানী (রহঃ)’ নামে ব্যক্ত করা হয়।  আধ্যাত্মিকতায় উচ্চমার্গের জন্য বড়পীর, ইরাকের অন্তর্গত ‘জিলান’ নামক স্থানে জন্মগ্রহণ করায় জিলানী, সম্মানিত হিসাবে আবু মোহাম্মদ মুহিউদ্দীন প্রভৃতি উপাধি ও নামেও তাকে সম্বোধন করা হয়।  

হিজরী ৫৬১ সালের ১১ রবিউসসানী আব্দুল কাদের পরলোক গমন করেন।  তার বয়স হয়েছিল ৯১ বছর।  তার ওফাত দিবস সারা বিশ্বের সূফীরা প্রতি বছর অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে পালন করে থাকেন এবং তার মৃত্যুবার্ষিকী ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহাম হিসেবে পরিচিত।