মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

রাত ৮টায় বুলবুলের আঘাত, মোংলা থেকে মাত্র ২৮০ কি.মিটার দূরে

নিজস্ব প্রতিবেদক, ডেল্টাটাইমস্, আপডেট : ৯ নভেম্বর ২০১৯

/ জলবায়ু পরিবেশ

সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত রাত ৮টায় শক্তিশালী বুলবুলের আঘাত হানতে পারে, সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার এগিয়ে এসে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ২৮০ কিলোমিটার ও পায়রা থেকে ৩১৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

শনিবার (৯ নভেম্বর) সন্ধ্যা নাগাদ ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানতে পারে খুলনাসহ দক্ষিণ-পূর্বের উপকূলীয় জেলাগুলোতে।

এর প্রভাবে বিকেল ৩টার পরে উপকূলীয় অঞ্চলে জোয়ার শুরু হলে স্বাভাবিকের চেয়ে ৫-৭ মিটার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে। বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের শক্তি আরও বেড়েছে। মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আর চট্টগ্রামে ৯ নম্বর মহাবিপদ সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

এদিকে, ৯টি জেলা ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের অতিঝুঁকিতে আছে। জেলাগুলো হলো- ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা ও সাতক্ষীরা। ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবিলায় উপকূলবর্তী সব জেলা, উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি ও প্রায় ৫৬ হাজার স্বেচ্ছাসেবককে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়।

সরিয়ে নিতে বলা হয়েছে উপকূলবর্তী এলাকার জনগণকে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুল চলাকালীন ও ঘূর্ণিঝড় শেষে উদ্ধারকার্যসহ যেকোনো সহায়তার জন্য প্রস্তুত আছে কোস্টগার্ড।

জরুরি সহায়তার জন্য নিচের ফোন নম্বরগুলোতে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে, বরিশাল বিভাগ-০১৭৬৬৬৯০৬০৩, খুলনা বিভাগ-০১৭৬৬৬৯০৩৮৩, চট্টগ্রাম বিভাগ-০১৭৬৬৬৯০১৫৩ এবং অতিরিক্ত -০১৭৬৬৬৯০০৩৩।