মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

কৃষকেরা বর্তমানে হতাশ-মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

নিজস্ব প্রতিবেদক, ডেল্টাটাইমস্, আপডেট : ২৯ অক্টোবর ২০১৯

/ কৃষি

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বর্তমানে সরকার যখন বিভিন্ন দূরর্নীতি বিরুদ্ধে কথা বলেন, তখন খুব হাসি পায়। আজকে ক্যাসিনো ব্যবসার মূল হোতারা কই। ছাত্রদের টাকা ভাগ বাটোয়ারার বিচার কই। বুয়েটের শিক্ষার্থী  আবরারকে কিভাবে নির্মমভাবে হত্যা করা হলো। চিন্তা করতে পারেন ? তিনি গতকাল সোমবার দুপুরে মির্জা রুহুল আমীন মিলনায়তনে ঠাকুরগাঁও  জেলা কৃষক দলের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, এ দেশ স্বাধীন হওয়ার ৫০ বছর পেরিয়ে গেলেও আজও আমাকে চিন্তা করতে হয় আমার অধিকার কোথায় ? আমার সুশাসন কোথায়, আমার সুন্দর সমাজ কোথায়? আওয়ামীলীগের অগণত্রান্ত্রিক আচরণই এর একমাত্র কারণ। তারা গণতন্ত্রে , মানুষের অধিকার ও সুশাসনে বিশ্বাস করে না। তাদের শাসন ব্যাবস্থাটাই এমন। দেশের প্রধান তিনটি নদী পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা নদীর বর্তমান অবস্থা নিয়ে তিনি বলেন, নদী গুলির অবস্থা দেখেছেন ? ভারত বাংলাদেশের মিত্র রাষ্ট্র। কিন্তু আজ পর্যন্ত কি তিস্তা চুক্তির বাস্তবায়ন হয়েছে। বাংলাদেশ কি পানির ন্যর্য হিস্যা পেয়েছে। এ ব্যপারে কোন অগ্রগতি বর্তমান সরকার করতে পারেনি। মির্জা ফখরুল বলেন, এ সরকার নতজানু সরকার। আর নতজানু পররাস্ট্র নীতি নিয়ে কোন দিন জাতিকে বিশ্ব দরবারে নিয়ে যেতে পারবে না। যেখানে সরকার নিজেই ভক্ষক এবং তাঁর এজেন্সি গুলো ভক্ষকের ভুমিকা পালন করছে, সেখানে আর কার কাছে যাবেন। দেশের কৃষি ব্যাবস্থা ও অর্থনীতি নিয়ে তিনি বলেন, কৃষকেরা বর্তমানে হতাশ। তারা তাদের ফসলের ন্যর্য মূল্য পাচ্ছে না। সম্প্রতি ধানের দাম পায়নি। আলু নিয়ে বর্তমানে চরম খারাপ অবস্থা বিরাজমান। একদিকে কৃষিপন্যের দাম নাই; অন্যদিকে আমরা চিৎকার করে বলছি বাংলাদেশকে সিঙ্গাপুর বানাবো। যেখানে কৃষকেরা পন্যের ন্যর্য্য মুল্য পায় না সেখানে কিসের উন্নয়ন আসে আমাদের মাথায় তা ঢুকে না। আমাদের কৃষক ভাল থাকলে, পন্যের সঠিক মুল্য পেলে আমাদের সামগ্রিক উন্নয়ন হবে। জিডিপির গ্রোথ দেখিয়ে মানুষকে উন্নয়নের কথা বলা হচ্ছে। যে উন্নয়ন আমাদের ঋনগ্রস্থ করে দেবে। যে উন্নয়ন আমাদের পরনির্ভরশীল করে দেবে।
সরকার বাংলাদেশকে ক্যাসিনো রাস্ট্র বানাতে চায় বলে অভিযোগ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ক্যাসিনো ব্যবসা নিয়ে যে নাটক চালনা হচ্ছে তার মূল হোতাদের কোন খবর নাই। যখন এ সরকারের সারা গায়ে কাঁদা লেগেআছে তখন এ সরকার কিভাবে নিজেই শুদ্ধি অভিযান চালায়। এ সরকার নিজেরাই শুদ্ধ নয়, কিন্তু এই শুদ্ধি চুনপুটিদের নিয়ে করা হচ্ছে। তাদের নিয়ে কখনও শুদ্ধি হতে পারেনা। জেলা কৃষক দলের সভাপতি আনোয়ারুল ইসলামের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে এসময় বক্তব্য দেন-কেন্দ্রীয় কৃষক দলের সদস্য সচিব কৃষিবিদ হাসিান জাফির তুহিন, জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমীন প্রমুখ। এর আগে মির্জা ফখরুল জেলা
কৃষকদলের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে জাতীয় ও দলীয় পতা উত্তোলন করে কর্মসুচির উদ্বোধন করে। সম্মেলন উপলক্ষে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসা নেতাকর্মীরা সকাল থেকে দলীয় কার্যালয়ে জড়ো হয়ে র‍্যালি নিয়ে আসে সম্মেলন স্থলে।