মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

গাইবান্ধার চরাঞ্চলে দুলছে কাশফুল

নিজস্ব প্রতিবেদক, ডেল্টাটাইমস্, আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০১৯

/ জলবায়ু পরিবেশ

গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি:

গাইবান্ধা সদর, সুন্দরগঞ্জ,ফুলছড়ি ও সাঘাটা উপজেলার চরাঞ্চলে দুলছে কাশফুল। অপরূপ সৌন্দর্যের কাঁশফুল সকালে সোনালী রোদে হালকা বাতাসে তাল মেলাচ্ছে, তেমনি দুপুরে প্রখর রোদের সাথে দুলে বাতাস ছড়িয়ে দিচ্ছে চরবাসীর মাঝে। আর বিকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত মনমুগ্ধকর মৃদু রোদের সাথে আনন্দ দিচ্ছে বিনোদন প্রেমীদের। তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র নদের চর বছরে তিন থেকে চারবার ভিন্ন রূপ ধারণ করে বুঝিয়ে দেয় তার সৌন্দর্য কতটা এবং তার বুক থেকে মানুষ কতটা আয় করে। বর্ষার সময় চরে জুড়ে শুধু পানি আর পানি। পানির ঢেউয়ে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ যেমন এলোমেলো ছুটাছুটি করে, তেমনি চরের মানুষজন মাছ শিকার করে অনেকে বিক্রি জীবিকা নির্বাহ করে। আবার কেউ নিজের প্রয়োজন মিটিয়ে আতœীয়-স্বজনদের বাড়িতে উপহার দেয়। বর্ষা কেটে গেলে পানি শুকিয়ে চর জেগে উঠার সাথে চরের মানুষজন তাদের প্রয়োজন মতো ধান, ভুট্টা, কালাই, বাদাম, পিয়াজ, রসুন, তামাক ও মিষ্টি কুমড়াসহ বিভিন্ন ফসল চাষাবাদ করে ছেরে-মেয়েদের লেখাপড়ার খরচসহসংসারে যাবতীয়চাহিদা পুরন করে। আর কোন শ্রম ছাড়াই চরে বিধাতা দেওয়া কাঁশফুল যখন সৌন্দর্য নিয়ে আসে তখন কার না ভাল লাগে। কাঁশফুলের গা ঘেঁষে রয়েছে তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র নদের ছোট ছোট নালা। নালায় হালকা চকচকে পানির স্রোতের সাথেও তাল দিচ্ছে কাঁশফুল। জেগে উঠা কাঁশফুল কাটার সময় হলে তা কেটে বিক্রি করে চরবাসী। এছাড়া এ সময় চরের চিকচিক বালুর সাথে সাদা কাঁশফুল বাতাসে দুলে।